কুষ্টিয়া পৌরসভা

কুষ্টিয়া পৌরসভা

কোম্পানী আমলে কুষ্টিয়া যশোর জেলার অধীন ছিল। চালতেদহের (বর্তমান গড়াই নদীর) অপর তীরে তালবাড়িয়ার মুখে ডাকদহের উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত কুষ্টিয়া থানাকে পদ্মার গ্রাস থেকে রক্ষা করবার এবং নীলবিদ্রোহ-উত্তর বিব্রত বিৃটিশ প্রশাসনিক ব্যবস্থাকে সুব্যবস্থিত করার লক্ষ্যে মজমপুর গ্রামের উত্তর-পূর্ব ভাগে স্থানান্তর করা হয়।

নতুন থানা কেন্দ্রিক এ অঞ্চল অতঃপর কুষ্টিয়া বলে পরিচিত হয় এবং এখানেই এ মহকুমা শহরের সদর দপ্তর গড়ে ওঠে। ১৮৫৬ পর্যন্ত কুষ্টিয়া থানা রাজশাহী বিভাগের পাবনা জেলাধীন, ১৮৬১ তে কুষ্টিয়া মহকুমা এবং ১৮৬৩ তে এ মহকুমা নদীয়া বিভাগের নদীয়া জেলার শামিল হয়।

পরবর্তীতে অবিভক্ত বাংলার আধা শহর ও আর্থিকক্ষেত্রে পশ্চাদপদ অঞ্চলগুলির সংরক্ষণ ও উন্নয়নের জন্য ১৮৬৮ সালে একটি পৌর আইন গৃহীত হয়। উক্ত আইনের আওতায় ১৮৬৯ সালের ১ এপ্রিল প্রতিষ্ঠিত হয় কুষ্টিয়া পৌরসভা। শুরুতে পৌরসভা আয়তন ছিল বর্তমানের চাইতে প্রায় দ্বিগুন। মজমপুর, বাড়াদী, মঙ্গলবাড়িয়া, হরেকৃষ্ণপুর, কমলাপুর, উদিবাড়ী, জগতি, চৌড়হাস, আড়ুয়াপাড়া ও বাহাদুরখালী গ্রাম সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল কুষ্টিয়া পৌরসভা। পরবর্তীকালে (প্রায় দুদশক পর) মঙ্গলবাড়িয়া, হরেকৃষ্ণপুর, উদিবাড়ী, বাড়াদী, জগতি, চৌড়হাস ও মজমপুরের অংশবিশেষ লোকাল বোর্ডের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় কুষ্টিয়া পৌরসভা আয়তনে ছোট হয়ে যায়। এর প্রায় একশ বছর পর (১৯৮১) পৌরএলাকা আবার সম্প্রসারিত হয়। যুক্ত হয় উত্তর লাহিনী, হরিশংকরপুর, কালিশংকরপুর, হাউজিং এষ্টেট এবং চৌড়হাস অংশবিশেষ।

শুরুতে পৌরসভা সরকারের মনোনীত ব্যক্তিদের দ্বারা পরিচালিত হতো, তৎকালীন এসিসটেন্ট ম্যাজিস্ট্রেট ও কালেক্টর এফ.ডব্লিউ. গিবল কুষ্টিয়া পৌরসভার প্রথম প্রশাসক। কিন্তু ১৮৮৪ সালের পৌর আইনের দ্বারা নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হয়, অবশ্য সবাই ভোটার হতে পারত না। পৌর এলাকায় বসবাসরত (কমপক্ষে ১ বছর) ন্যূনতম ১৮ বছর বয়স্ক পুরুষ করদাতাবৃন্দ বিশেষ শর্তাধীনে ভোটার হতো। মহিলাদের সে সময় ভোটাধিকার ছিল না। ১৮৮৪ সালের তৃতীয় আইনে পৌর-এলাকায় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, রাস্তাঘাট প্রভৃতি জনহিতকর কাজের দায়িত্ব পৌরসভার উপর ন্যস্ত হয়। এর ফলে প্রয়োজনীয় অর্থসংস্থানের জন্য পৌরসভা গৃহ ও জমি, পশু ও গাড়ী, পেশা ও ব্যবসা, জলসরবরাহ, রাস্তা আলোকরণ, কনজারভেন্সী, ব্যক্তিকর এবং বিবিধ খাত-সমূহ থেকে কর ও ফি আদায় করতে পারত।

বর্তমানে এটি একটি ‘ক’ শ্রেণীর পৌরসভা। দেশ স্বাধীনের পর পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান ম. আ. রহিম। ৪ একর জমির উপর পৌরসভা অফিস ভবন অবস্থিত। ১টি পুকুর ও বিভিন্ন ধরনের গাছদ্বারা অফিস ভবন পরিবেষ্টিত। ২১টি ওয়ার্ড নিয়ে এ পৌরসভা গঠিত। ২৮ জন কাউন্সিলর বর্তমানে পৌর পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

কুষ্টিয়া পৌরসভার পাশ দিয়ে গড়াই নদী অবস্থিত। বিখ্যাত সাধক লালন ফকিরের মাজার এ পৌরসভায় অবস্থিত। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি বিজরিত টেগর লজ পৌর এলাকার মধ্যে অবস্থিত। বিআরবি কেবলস, এমআরএস ইন্ডাষ্ট্রিজ, কিয়াম মেটাল, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকোসহ অন্যান্য ইন্ডাষ্ট্রিজ পৌর এলাকার মধ্যে অবস্থিত।

শিক্ষা

শিক্ষার দিক থেকে কুষ্টিয়া পৌরসভাএকটি অগ্রসরমান অন্ঞ্চল। আন্ঞ্চলিক এবং জাতীয় পর্যায়ে স্বনামধন্য বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এ জেলাতে অবস্থিত।
বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছেঃ
• উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় : 16
• নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় : 40
• প্রাথমিক বিদ্যালয় : 120
• কিন্ডারগার্টেন : ১১৪
• মাদ্রাসা : ৯৯
• শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র : ৪
• আইন কলেজ : ১
• মেডিক্যাল ইনস্টিটিউট : ১
• কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র : ৬
• প্রতিবন্ধীদের বিদ্যালয় : ১
• NGO পরিচালিত বিদ্যালয় : ৪৫৬

উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
• কুষ্টিয়া সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ (স্থাপিত ১৯৪৭)
• কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজ (স্থাপিত ১৯৬৮)
• কুষ্টিয়া জেলা স্কুল (স্থাপিত ১৯৬০)
• কুষ্টিয়া সরকারী বালিকা বিদ্যালয়
• কুষ্টিয়া হাই স্কুল
• মিশন প্রাথমিক বিদ্যালয় (স্থাপিত ১৮৯৮)

পৌরসভা সদস্যগণ
মেয়র কুষ্টিয়া পৌরসভা
প্যানেল মেয়র কুষ্টিয়া পৌরসভা
কাউন্সিলর কুষ্টিয়া পৌরসভা
সাধারন তথ্যাবলী
স্থাপিত ১লা এপ্রিল ১৮৬৯
শ্রেণী ‘ক’
আয়তন ৪২.৭৯ বর্গ কিঃ মিঃ
ওয়ার্ড ২১টি
মোট জনসংখ্যা ৩,৭৫১৪৯ জন
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
কিন্ডার গার্টেনকিন্ডারগার্টেন ১১৪টি
সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১২০টি
বেসরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১৬টি, নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৪০টি
মাদ্রাসা৯৯টি
অবকাঠামো ও সরবরাহ সেবা
মোট রাস্তাকাঁচা ১০.৫০ কি.মি., ডব্লিউবিএম ৫.০০ কি.মি., সিসি/আরসিসি ৪০.০০ কি.মি., সলিং ১০.০০ কি.মি., এইচবিবি ৫.০০ কি.মি. কার্পেটিং ১১০.০০ কি.মি.
মোট ড্রেনকাঁচা ড্রেন ৯৫.০০ কি.মি., প্রাইমারী খাল/ড্রেন ১৫.০০ কি.মি., আরসিসি ড্রেন ২০.০০ কি.মি. এবং ব্রিক ড্রেন ৫০.০০ কি.মি.
ব্রীজ১টি
কালভার্টকালভার্ট ৯০টি
ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান
মসজিদ৬৫টি
মন্দির২৪টি
কবরস্থান৪টি
শশ্মান ঘাট১টি
ঈদগাহ মাঠ৭টি
স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
সরকারী হাসপাতাল২টি
মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রইপিআই সেন্টার ৪৯টি
ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারবেসরকারি ক্লিনিক ১৪টি, বেসরকারি হাসপাতাল ৫টি
কসাইখানা১টি


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.