৬ বাংলাদেশি জেলেকে নিয়ে গেছে বিজিপি

৬ বাংলাদেশি জেলেকে নিয়ে গেছে বিজিপি

আবারও মাছ ধরার সময় দুই নৌকাসহ ছয় বাংলাদেশি জেলেকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। আজ সোমবার বেলা ৩টার দিকে বিজিপি সদস্যরা টেকনাফ পৌরসভার জালিয়া পাড়া সংলগ্ন নাফ নদ থেকে তাদের ধরে নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন পালিয়ে আসা দুই জেলে ও তাদের পরিবার।

এর আগে নাফ নদ থেকে গত ৩-১১ নভেম্বরের মধ্যে ১২ জন ও ৭ ডিসেম্বর দুই জেলেকে অস্ত্রের মুখে ধরে নিয়ে যায় বিজিপি। তাদের এখনও ফেরত দেয়নি মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ। আজ সোমবার বিজিপির হাতে আটক জেলেরা হলেন- মো. হোসেন (৩০), আবদুর করিম (২৮), আক্তার ফারুক (১৬), সাদেক হোসেন (১৮), মো. ফারুক (৩৭) এবং মো. সাদেক (১৭)।

পালিয়ে আসা দুই জেলে হলেন- আবদুল আমিন (২০) ও নুর মোহাম্মদ (২৫)। তাদের সবার বাড়ি টেকনাফ পৌরসভার চৌধুরী পাড়া এলাকায়। পালিয়ে আসা দুই জেলে জানান, সকালে দুটি নৌকা নিয়ে আট জন নাফ নদে মাছ ধরতে যান। এ সময় মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাদের ধাওয়া করে ধরে ফেলে। পরে অস্ত্রের মুখে মিয়ানমারের দিকে নিয়ে যাওয়ার সময় তারা নৌকা থেকে নদীতে ঝাঁপ দেন। সাঁতরে আসার সময় নদে মাছ শিকাররত জেলে আব্দুল আজিজ তাদের উদ্ধার করেন।

ওই ছয় জেলে এখনও বিজিপির কাছে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তাদের পরিবার।

টেকনাফ ২ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) উপ-অধিনায়ক মেজর আবু রাসেল ছিদ্দিকী বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। ধরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখে বিজিপির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হচ্ছে। অপহৃত জেলে পরিবারের পক্ষে থেকে বিষয়টি অবহিত করা হয়নি।’

কেন এই ধরনের ঘটনা ঘটছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নাফ নদীতে বিঙ্গি জাল নিয়ে মাছ শিকার করতে নিষেধ করার পরও জেলেরা মিয়ানারের জলসীমানায় গিয়ে মাছ শিকার করছে। তাই বারবার এ ধরনের ঘটনা ঘটছে।