শারিরীক প্রতিবন্ধী রাজন প্রতিবন্ধী হওয়া সত্বেও রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না

শারিরীক প্রতিবন্ধী রাজন প্রতিবন্ধী হওয়া সত্বেও রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না

মোঃ মহসিন ফরাজী, ফেনী থেকে:

ফিরে মোঃ জাকারিয়া ভূঞাঁ রাজন একজন শারিরীক প্রতিবন্ধী, আর একজন শারিরীক প্রতিবন্ধী সরকার কর্তৃক প্রদত্ত রাষ্ট্রীয় সকল সুযোগ সুবিধা পাওয়ার উপযুক্ত নয় কি?মোঃ জাকারিয়া ভূঞাঁ রাজন, পিতা মোঃ আবুল বশর ভূঞাঁ, গ্রাম দক্ষিণ করইয়া, পোষ্টঃ কালিকাপুর, থানা ফুলগাজী, উপজেলা – ফুলগাজী,জেলা – ফেনী, সে একজন শারিরীক প্রতিবন্ধী? শারিরীক প্রতিবন্ধী হয়েও জীবন যুদ্ধের সাথে সংগ্রাম করে তার বেড়ে ওঠা। উদ্দেশ্য ও স্বপ্ন একটাই অন্যসব সাধারন ৮-১০ ছেলের মত স্বাভাবিক ভাবে বেচেঁ থাকা। উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করে দেশ প্রেমে উৎসাহিত হয়ে দেশের মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করা।প্রতিবন্ধীদের জন্য বর্তমান সরকার নানা সুযোগ – সুবিধা প্রদান করে আসছে। প্রতিবন্ধী ভাতা, প্রতিবন্ধীদের জন্য বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধী কোটা, চাকুরী কোটাসহ রাষ্ট্রীয় সকল সুযোগ সুবিধায় প্রতিবন্ধীদের জন্য বর্তমান সরকার বরাদ্দ প্রদান করা হলেও স্বাধীনতার এত বছর পর আজও সরকারী উচ্চ পদস্থ কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত কিছু কর্মকর্তাদের বৈষম্যের শিকার এ অসহায় প্রতিবন্ধীরা। অসহায় এ সব প্রতিবন্ধীদের একটায় প্রত্যাশা বর্তমান সরকারের কাছে, যদি সরকার আমাদেরকে রাষ্ট্রীয় সকল সুযোগ সুবিধা প্রদান করে থাকে তাহলে একশ্রেনীর মানুষের কাছে আমরা এখনও বৈষম্যের শিকার কেন? মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আমাদের আবেদন আমরাও আপনাদের মত রক্ত মাংশে গড়া মানুষ? আমরা সরকারের দেওয়া প্রতিবন্ধীদের জন্য সকল সযোগ – সুবিধা বিনা বাঁধায় ও বিনা বৈষম্যের এবং বিনা সংকোচের মাধ্যমে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার মাধ্যমে পেতে চাই। শারিরীক প্রতিবন্ধী মোঃ জাকারিয়ার ভূঞাঁ রাজনের কাছে তার জীবনের সাথে সংগ্রাম করে বেচেঁ থাকার গল্প জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি একজন শারিরীক প্রতিজন্ধী হয়েও কখনও নিজের বিবেক, মন আমার পরিবার ও সমাজ কে বুঝতে দেইনি নিজের সংগ্রামীময় জীবনের দুঃখ কষ্ট গুলো। জীবনে চলার পথে পদে পদে সামাজিক বৈষম্যের ও শারিরীক নির্যাতনের শিকার হয়েছি, অনেক বার চক্ষু লজ্জা ও পারিবারিক মানস্মানের কারণে কখনও আইনের আশ্রয় নিতে পারিনি। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়, বনানী, ঢাকা কর্তৃক কার্ড নং-৯৮৬, জন্মতারিখ ১০/০১/২০০০ খ্রিঃ, গত ০৯/০২/২০১০ তারিখে আমাকে প্রতিবন্ধী পরিচয় প্রদান করা হয়। আমি ২০১৭ সালে শারিরীক অসুস্থতা নিয়ে বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে জি.পি.এ ৪.১৫ নিয়ে পাশ করি। অনেক আশা নিয়ে বর্তমান সরকারের দেওয়া প্রতিবন্ধীদের জন্য সারা দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতিবন্ধীকোটায় আবেদন করি কিন্তুু অত্যন্ত হত্যাশাজনকভাবে শিক্ষাবোর্ডগুলো আমাকে সুযোগ করে দেয়নি আমার অন্ধকারময় জীবন কে শিক্ষার মাধ্যমে আলোর পথে নিয়ে এসে দেশের সেবা করার জন্য আমি সুযোগ পাইনি ফেনী সরকারী কলেজে ভর্তির শেষে আমি ফেনী সরকারী পলিটেকনিক্যালে কম্পিউটার টেকনোলজীতে আবেদন করেও সুযোগ পেলাম না। এদিকে শারিরীক প্রতিবন্ধী জাকারিয়া ভূঞাঁ রাজনের বিষয়টা নিয়ে ফেনী সরকারী কলেজ ও ফেনী সরকারী পলিটেকনিক্যালের অধ্যক্ষের কাছে জানতে চাইলে। তারা জানান, ভর্তি সংকান্ত সকল বিষয়াদি বোর্ড বহন করে আমাদের হাতে কিছুই নেই। আপনি বোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে যোগা-যোগ করতে পারেন। এদিকে বাংলাদেশ কারী শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের ব্যক্তিগত মোবাইলে ফোন করে শারিরীক প্রতিবন্ধী মোঃ জাকারিয়া ভূঞাঁ রাজনের ভর্তি বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি শারিরীক প্রতিবন্ধীর সনদপত্রসহ প্রযোজনীয় কাগজপত্র “চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, অাগারগাও, ঢাকা-১২০৭ ঠিকানায় কুরিয়ার সার্ভিসে পাঠাতে বলে। কুরিয়ার সার্ভিসে পাঠানো তারিখ ১৩জুলাই ২০১৭ই পদত্ত গ্রহন কৃত রশিদ নং -১০১০২০০০১১৯৭৮৯। এতদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও শারিরীক প্রতিবন্ধী জাকারিয়া ভূঞাঁ রাজন তার পছন্দের প্রতিষ্ঠান ফেনী সরকারী পলিটেকনিক্যালের কম্পিউটার টেকনোল্জীতে ভর্তি হওয়ার সুয়োগ পায়নি। তার প্রত্যাশা তাকে বোর্ড সুযোগ করে দিবে পড়া-লেখা করে সাধারনভাবে বেঁচে থাকার জন্য।